২৬শে জুলাই, ২০১৭ ইং
Breaking::

প্রতিরক্ষা চুক্তি জনগণ মানবে না : ফখরুল

image-17010-1484815925

তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা ও সীমান্ত হত্যাকাণ্ডের মতো অমীমাংসিত সমস্যার সমাধান না করে প্রতিরক্ষা চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক জনগণ মানবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকার পরও কেন প্রতিরক্ষা চুক্তি বা সমঝোতা করতে হবে, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিএনপির মহাসচিব।

আজ শুক্রবার সকালে সদ্য কারামুক্ত বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলকে নিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে শেরে বাংলানগর এলাকায় জড়ো হন বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী।

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে ফখরুল বলেন, ‘বাংলাদেশের সমস্যাগুলো তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, তিস্তা নদীর পানি সমস্যার সমাধান করা। অর্থাৎ ন্যায্য হিস্যা পাওয়া, ৫৮টি অভিন্ন নদীর ন্যায্য হিস্যা পাওয়া। আমাদের সীমান্তে যে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশি নাগরিকদের হত্যা করা হচ্ছে তা নিরসন হওয়া এবং ট্যারিফ-নন ট্যারিফ বিষয় বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যে বাধা রয়েছে সেই বাধা অপসারণ করা। এগুলোই এই মুহূর্তে বাংলাদেশের সব থেকে বড় সমস্যা।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এই সমস্যাগুলো যদি সমাধান না হয়, তাহলে শুধুমাত্র ভারতের সঙ্গে কোনো রকম প্রতিরক্ষা চুক্তি অথবা সমঝোতা কোনোটাই বাংলাদেশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। সরকার যেটা বলছেন যে, ভারতের সঙ্গে বর্তমানে বাংলাদেশের সম্পর্ক উচ্চতম পর্যায়ে রয়েছে। উচ্চতম পর্যায়ে যদি থাকে তাহলে এই ধরনের প্রতিরক্ষা চুক্তি অথবা সমঝোতা স্মারক সই করার কোনো প্রয়োজন আছে বলে আমরা মনে করি না। বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, রাষ্ট্রবিরোধী কোনো সমঝোতা বা চুক্তি জনগণ মেনে নেবে না।’

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় প্রতিবেশী ভারতসহ গণতান্ত্রিক বিশ্ব ভূমিকা রাখবে বলেও প্রত্যাশা করেন বিএনপি মহাসচিব।